করোনা আক্রান্ত গনমাধ্যমকর্মী স্বাস্থ্য বিভাগের বিড়ম্বনার শিকার

 অন্তরালে ডেক্স রিপোর্ট:

খুলনা থেকে  সংগ্রহ করা নমুনার পরীক্ষার ফলাফল আইইডিসিআর থেকে নিয়মিত পাওয়া যাচ্ছে না বলে অভিযোগ উঠেছে।এতে করে খুলনা জেলা করোনা রোগির মধ্যে শঙ্কাওক্ষোভ দেখা দিয়েছে। এ বিষয় নিয়ে “পাক্ষিক চিতলমারীর অন্তরালে” পত্রিকার খুলনা ব্যুরো প্রধান মো: নাঈমুজ্জামান শরীফ মুঠোফোনে বলেন,স্বাস্থ্য বিভাগ মানুষের জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলা শুরু করেছে।নিয়ম নীতির তোয়াক্কানা করে যাইচ্ছে তা করছে।

করোনা আক্রান্ত নাঈমুজ্জামান রুপসা উপজেলার  রামনগর এলাকার মো: ইকবাল হোসেন শরীফের ছেলে। তিনি “চিতলমারীর অন্তরালে” কে জানান, ৩০ জুন তার নমুনা প্রদান করেন খুলনা মেডিকেল ল্যাবে। ৭জুন ঢাকা থেকে রাত সাড়ে ১০টায় জানানো হয় তার করোনা পজেটিভ হয়েছে ।বিষয়টি নিশ্চিত হতে খুলনার সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে কয়েকবার যাওয়া হলেও রিপোর্ট নাপেয়ে বিমুখ হয়ে আসতে হয়েছে তাকে।তার যে করোনা পজেটিভ তা স্থানীয় রুপসা হাসপাতালও রুপসার ইউএনওর দপ্তরও অবহিত হতে পারেনি। ফলে রোগির বাসায় লগডাউন সহ সরকারি নিয়ম কানুন প্রয়োগে বাধাগ্রস্ত হয়।

১৩ দিনপর রিপোর্টের কাগজপত্র আনতে গেলে( ১৩ জুলাই) খুলনা মেডিকেল থেকে জানানো হয় ঢাকা থেকে রিপোর্টটি সাতক্ষিরা হাসপাতালে চলে গেছে।

স্বাস্থ্যবিভাগের এধরনের অণিয়ম অব্যবস্থাপনায় আস্থা হারিয়ে অসুস্থ এই গনমাধ্যমকর্মী কর্তৃপক্ষের প্রতি প্রশ্ন রেখে বলেন, স্বাস্থ্যবিভাগের গাফিলতিতেও  বিলম্বিত রিপোর্ট পাওয়ার  কারনে যদি আমার পরিবার বা অপর কেউ এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয় তবে এর দায়ভার কে নেবে? প্রতিদিন বহু মানুষ নমুনা টেষ্টের রিপোর্ট নিতে এসে হয়রানির শিকার হচ্ছে। তিনি এঘটনার সুষ্টু তদন্তের দাবি জানান।

 

 

     এ জাতীয় আরো খবর..

আমাদের পত্রিকায় আপনাকে স্বাগতম

লাইভ ভিডিটর

20
Live visitors

সংবাদ খুজছেন… নিচের বক্সে শিরোনাম লিখুন