করোনায় কোরবানীর ঈদে করণীয় কি?

কপিল ঘোষ:
করোনাকালে কোরবানী ঈদে বা পবিত্র ঈদ-উল-আযহায় করণীয় কি? এ সম্পর্কে সোমবার (২৭ জুলাই) সকাল সাড়ে নয়টায় বাগেরহাটের চিতলমারী উপজেলার প্রধানগণ সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় করেছেন। তাঁরা করোনাকালে আগত কোরবানী ঈদ সম্পর্কে বিভিন্ন দিক নির্দেশনা দিয়েছেন।
চিতলমারী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অশোক কুমার বড়াল বলেন, ‘সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে মসজিদের ভিতরেই পবিত্র ঈদ-উল-আযহার নামাজ আদায় করতে হবে। প্রশাসন, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, জেলা পরিষদ ও ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যবৃন্দসহ সবাই যার যার অবস্থান থেকে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধের দিক নির্দেশনা মেনে যাতে ঈদ পালন করতে পারেন সেই প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।’
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মারুফুল আলম বলেন, ‘পবিত্র ঈদে কোরবানীর পশু কেনা-বেচার জন্য ইতোমধ্যে অনলাইন হাটের ব্যবস্থা করা হয়েছে। ওই অনলাইনে চিতলমারীর ১১২জন খামারী সহ বাগেরহাট জেলার পশুর ছবি, দাম, ঠিকানাসহ বিস্তারিত তথ্য দেয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। উন্মুক্ত স্থানে কোনভাবেই ঈদের নামাজ আদায় করা যাবে না। প্রত্যেক নামাজি বাড়ি থেকে গোসল, ওযু করে মাস্ক পরে বাড়ি থেকে জায়নামাজ নিয়ে মসজিদে আসবেন। নির্দিষ্ট দুরত্বে থেকে নামাজ আদায় করবেন।’
ইউএনও আরো বলেন, ‘এলাকার বাইরে হতে যারা ঈদ উপলক্ষ্যে বেড়াতে আসবেন, তারা হোম কোয়ারেন্টিনে থাকবেন। কোন অবস্থায় তারা জামাতে দাড়িয়ে নামাজ আদায় করতে পারবেন না। এ বিষয়ে ৬৩টি ওয়ার্ড কমিটি সতর্ক দায়িত্ব পালন করবে। চিতলমারী উপজেলায় ৩৩০টি মসজিদ আছে। তাদেরকেও বিষয়টি জানানো হয়েছে। এছাড়াও সরকারী আরো নির্দেশনা রয়েছে। যা প্রত্যেক এলাকায় মাইকিং-এর মাধ্যমে প্রচারের ব্যবস্থা করা হয়েছে।’
উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. বাবুল হোসেন খান বলেন, ‘একদিকে করোনা মহামারীর ভয়, অপরদিকে পবিত্র ঈদ-উল-আযহা সমাগত। প্রত্যেকে নিজে সুরক্ষিত থাকবো, অন্যকে সুরক্ষিত রাখবো। সরকারী নির্দেশনা মেনে চলুন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা এবং বাগেরহাট-১ আসনের এমপি শেখ হেলাল উদ্দীনের পক্ষ হতে সবাইকে ঈদের শুভেচ্ছা।’

     এ জাতীয় আরো খবর..

আমাদের পত্রিকায় আপনাকে স্বাগতম

লাইভ ভিডিটর

20
Live visitors

সংবাদ খুজছেন… নিচের বক্সে শিরোনাম লিখুন