ত্রানবাহি গাড়িতে দেড় লক্ষ ইয়াবা, আটক ২

কক্সবাজার এর মহেশখলীতে করোনা ত্রানবাহি চন্দ বেসে চালানকালে দেড় লক্ষ ইয়াবা সহ ২ জনকে আটক করেছে মহেশখালী থানা পুলিশ। এই ঘটনায় মুল ব্যবসায়ী উপজেলার ছোট মহেশখালী ইউনিয়নের মেম্বার ওসমান গনি সহ অপর সহযোগিতা পলাতক। ঘটনাটি ঘটেছে ৫ই মে ভোর ৪টায় ইউনিয়নের হাইস্কুলের গেইট এর সামনে। স্থানীয় লোকজন সেহেরি খেয়ে মসজিদে নামাজ পড়তে আসার সময় কাবার ভ্যানটি ভিতরে বড় ধরনের হাতুড়ির বারি শব্দ শুনে সন্দেহ হলে স্থানীয় লোকজন কাবার ভ্যানটি আটক করে পুলিশ খবর দেয়।

সংবাদ পেয়ে মহেশখালী থানার ওসি প্রভাষ চন্দ্র ধর ওপুলিশ পরিদর্শক তদন্ত মোঃ বাবুল আজাদ এর নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে অভিযান পরিচালনা করে। এই সময় সঙ্গীয় কাবার ভ্যান এর পাটাতনে বিষেশ কায়দায় রক্ষিত ১০ পেকেট ইয়াবা পলেথিন মোড়ানো অবস্থায় উদ্ধার করে যা ১লক্ষ ৫০ পঞ্চাশ হাজার ইয়াবা হিসাবে জব্দ করে। জব্দকালে কাবার ভ্যানে চালানকারী টেকনাফ শাহাপরির দ্বীপের মাঝের পাড়া গ্রামের আইয়ুব আলীর পুত্র করিম উল্লাহ ও সিলেট সুনামগঞ্জের সোলাইমানের পুত্র নুর মোহাম্মদ।

আটককালে তারা জানায়,দ্বিতীয় রমজান থেকে ১১ই রমজানের মধ্যে কাবার ভ্যানটি ২টি ইয়াবা চালান মহেশখালী থেকে ঢাকা মিরপুরে নিয়ে যায়। করোনার দু:সময়ে কিছু বস্তাভর্তি ত্রানের সাথে একট ভাউচার নিয়ে সড়কে পুলিশের চোখে ফাঁকি দিয়ে মহেশখালীতে প্রবেশ করে সন্ধ্যাকালীন সময়ে। রাতে ত্রানগুলি স্থানীয় বারমাইয়া ওসমান মেম্বার এর বাড়িতে খালাস করে সেহেরি খাওয়ার সময় ইয়াবা বুঝাই করে ঢাকায় নিয়ে যায় বলে আটককৃত জানান।

সূত্রে আরো জানায়, চট্টগ্রাম শহরে ২নং গেইট এলাকায় অবস্থান করা ওসমান মেম্বার এর ভাই নুরুল আমিন ও ঢাকা মিরপুরে একে মিন্ঠু মিয়া ও গাজী পুরের ফারুক মোল্লার কাছে ইয়াবা গুলি খালাস করে।

আটককৃতরা জানান,গতকাল ৪মে সন্ধ্যায় ইফতারের পূর্বে ৭০ প্যাকেট ত্রানভর্তি বস্তা সহ কাবার ভ্যানটি মহেশখালীতে প্রবেশ করে ছোট মহেশখালী ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের ডেইল পাড়া গ্রামে রাস্তার উপর অবস্থান করে এশারের নামাজের পর স্থানীয় লোকজনের মাঝে ত্রানগুলি বিতরণকরে। ভোর রাতে সেহেরি খাওয়ার সময় ওসমান মেম্বার,তার ছেলে ইসমাইল,শালি আয়েশা বেগম ইয়াবা গুলি কাবার ভ্যানে উঠিয়ে দিয়ে মহেশখালী থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা হলে ছোট মহেশখালী হাইস্কুলের সামনে গিয়ে ভ্যান গাড়িটি আটক করে।

আটককৃত গাড়ীর নাম্বার ঢাকা মেট্টো- ম (১১-১২৯১)। বিপুল পরিমান ইয়াবা উদ্ধারের খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন সহকারী পুলিশ সুপার (মহেশখালী সার্কেল) রতন কুমার দাশ গুপ্ত।

এব্যাপারে সহকারী পুলিশ সুপার (মহেশখালী সার্কেল) রতন কুমার দাশ গুপ্ত জানান, গ্রেপ্তারকৃতদের ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে, ইয়াবা বিকিনিকির সাথে আর কে বা কারা জড়িত আছে তাদের খোঁজে বের করা হবে। আটককৃতদের ভাষ্যমতে স্থানীয় ওসমান মেম্বার এ ইয়াবা চালানের সাথে জড়িত বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসা বাদে জানাগেছে।

     এ জাতীয় আরো খবর..

আমাদের পত্রিকায় আপনাকে স্বাগতম

লাইভ ভিডিটর

27
Live visitors

সংবাদ খুজছেন… নিচের বক্সে শিরোনাম লিখুন