চিতলমারীতে জায়গা দখলকে কেন্দ্র করে অগ্নি সংযোগ- নারী সহ আহত ৯ জন

মো: একরামুল হক মুন্সী:
বাগেরহাটের চিতলমারীতে জায়গা দখলকে কেন্দ্র করে বাড়ি-ঘর ভাংচুর দোকানে লুটপাট- অগ্নিসংযোগও হামলায় দুই পক্ষের নারী সহ ৯ জন আহত হয়েছে। আহতদের চিতলমারী স্বাস্থ্যকেন্দ্র ও খুলনা ২৫০ শয্যা হাসপাতালে প্রেরন করা হয়েছে। এরিপোর্ট লেখা পর্যন্ত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন রাখতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন কর হয়েছে। এহামলার ঘটনায় পরস্পর বিরোধী বক্তব্য পাওয়াগেছে। উপজেলার কালিগঞ্জ বাজার সংলগ্ন পিঁপড়ারডাঙ্গা গ্রামে ২৮ সেপ্টেম্বর (সোমবার) সকালে এঘটনা ঘটেছে।
সরেজমিনে স্থানীয় মৃত: জহিরুল মোল্লার ছেলে শফিকুল মোল্লা জানান প্রতিপক্ষ হেলাল সরদারের নের্তৃত্বে শতাধিক লোক সোমবার সকালে তাদের জায়গায় ঘর তুলতে গেলে বাঁধা প্রদান করে। এসময় ক্ষিপ্ত হেলাল সরদারের লোকজন বাড়ি-ঘর ভাংচুর অগ্নি সংযোগ ও নগত টাকা-স্বর্ণালংকার লুট সহ তার ‘মা’ আলেয়া বেগম (৪৯), বড় ভাই জাহিদ মোল্লা (৩৮),ভাবি রিনা বেগম (২৪) ও মোঃ ইরান সরদার(৩৫) কে পিটিয়ে ও কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। তারমধ্যে মধ্যে জাহিদ মোল্লার অবস্থার অবনতি দেখে ডাক্তার তাকে খুলনা ২৫০ শয্যা হাসপাতালে প্রেরন করেছেন।
অপরদিকে সব ঘটনা বানোয়াট বলে অস্বীকার করে স্থাণীয় হেলাল সরদার বলেন, জাহিদ মোল্লার পূর্বপরিকল্পনায় নিজেরাই তাদের ঘরে অগ্নি সংযোগ করেছে। আমার খরিদকৃত সম্পত্তিতে ঘর তুলতে গেলে সে এবং তার দলবল আমাদের লোক জনকে আকস্মিক ভাবে মার পিট করে এতে আমার লোকদেরমধ্যে শামীম খান (৩০), সোহাগ সরদার(২৫),ইয়াসি মোল্লা(২৫), মোস্তাক শেখ(৪৮) ও হেদায়েত(২২) গুরুতর আহত হয়। তারমধ্যে শামীমকে আশঙ্কজনক অবস্থায় খুলনা ২৫০ শয্যা হাসপাতালে প্রেরন করা হয়েছে।
এব্যপারে স্থাণীয় মোল্লা আসাদুজ্জামান বলেন, বিআর -এর ২০৪ খতিয়ান দাগ নং-৯১৯ যার রেকডীয় মালিক হরেন্দ্র নাথ। এর নিকট থেকে হেলাল সরদার উক্ত সম্পত্তি খরিদ মূলে মিউটেশন করেছেন। সাথেই ৯১৮দাগের মালিক প্রতিপক্ষ জাহিদ গং ফলে তিনি জোর করে ৯১৯ দাগও দখল করতে চান।
স্থানীয় ইউপি সদস্য কৃষ্ণপদ রায় বলেন, ওখানে হেলাল সরদারের চার শতক জমি আছে তা আলাদা দাগও প্লটে, এনিয়ে অনেক বার সালিশ বৈঠক করা হয়েছে। কিন্তু জাহিদ আপোসে আসতে চায়না। সে হেলালের জায়গাও দখল করতে চায়।
চিতলমারী থানার অফিসার ইন চার্জ মীর শরিফুল হক জানান, উক্ত সম্পত্তি নিয়ে দীর্ঘ ১৬ বছর ধরে বিরোধ চলছে। ভোরে উভয়পক্ষের মধ্যে দখল দারিত্ব নিয়ে হামলা পাল্টা হামলা হয়। আমি জানতে পেরে সরেজমিনে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করি। সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। থানায় কোন মামলা হয়নি, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে।

     এ জাতীয় আরো খবর..

আমাদের পত্রিকায় আপনাকে স্বাগতম

লাইভ ভিডিটর

192
Live visitors

সংবাদ খুজছেন… নিচের বক্সে শিরোনাম লিখুন