চিতলমারী নিরাপদ বাসস্থান পরিদর্শনে ইউএনও মারুফুল আলম

মো. একরামুল হক মুন্সী :
বাগেরহাটের চিতলমারী উপজেলায় নতুনভাবে সরকারি ঘর দেয়ার কাজ শুরু হয়েছে। যাদের জমি আছে, কিন্তু বাসযোগ্য ঘর নাই, অথবা জমি ও নিরাপদ ঘর দুটোর কিছুই নাই তাদের জন্য নিরাপদ বাসস্থান নিশ্চিত করতে সরকার এই উদ্যোগ নিয়েছে। গত শনিবার (০৫ ডিসেম্বর) চিতলমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মারুফুল আলম চলমান কিছু ঘরের কাজ পরিদর্শন করেন।
তিনি চিতলমারী সদর ইউনিয়নের কুরমনি গ্রামে দলিত শ্রেণিকে দেয়া ইটের গাঁথুনির দিয়ে তৈরিকৃত ঘরের কাজ পরিদর্শন করেন। এসময় ইউএনও মো. মারুফুল আলম বলেন, ‘মুজিববর্ষ উপলক্ষ্যে কেউ গৃহহীন থাকবে না। সবার জন্য নিরাপদ আবাসন নিশ্চিত করা সরকারের অঙ্গীকার। এজন্য চিতলমারী উপজেলার সাতটি ইউনিয়নে দুই হাজার ৩৩২টি ঘর বরাদ্দ হয়েছে। তার মধ্যে প্রধানত তিন শ্রেণির মানুষ ঘর পাবে। এক. যার জমি ও নিরাপদ ঘর নেই। দুই. যার জমি আছে, নিরাপদ ঘর নাই। তিন. ঘুর্ণিঝড়, প্রবল বৃষ্টি বা দুর্যোগে যার বসতঘর মারাত্মকভাবে ঝুঁকিপূর্ণ তাদেরকে এই বসতঘর দেয়া হচ্ছে।
ইউএনও আরো জানান, প্রতিটি ঘরের জন্য সরকারী বরাদ্দ এক লাখ ৭৫ হাজার টাকা। প্রতিটি ঘরে থাকার জন্য দুইটি কক্ষ, একটি রান্নার কক্ষ, বারান্দা ও টয়লেট থাকবে। ইটের ভিত, দেয়ালসহ ছাউনি থাকবে রঙিন টিনের।

     এ জাতীয় আরো খবর..

আমাদের পত্রিকায় আপনাকে স্বাগতম

সংবাদ খুজছেন… নিচের বক্সে শিরোনাম লিখুন