একজন সম্মুখ করোনা যোদ্ধা শেখ শাহাজালাল হোসেন সুজন

রফিকুল ইসলাম: খুলনা মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি ও যুবলীগের যুগ্ন আহ্বায়ক শেখ শাহাজালাল হোসেন সুজন এখন খুলনার ছাত্র ও যুব সমাজের আদর্শে পরিণত হয়েছে।এমন একজন ক্লিন ইমেজের নেতার নেতৃত্বে চলতে পেরে অধিকাংশ কর্মীরা সন্তুষ্ট প্রকাশ করেন।শেখ শাহাজালাল হোসেন সুজন এমন একজন নেতা যার দিন নেই রাত নেই সারাক্ষণ কষ্ট করে করোনা রোগীদের সেবা দিয়ে যাচ্ছে। তার পরিবার থেকেও না থাকার মত অবস্হা ।কারণ তার পরিবারের প্রিয় মা ও মেয়েকে রেখে সে অন্যথায় জীবন যাপন করছে ,শুধুমাত্র সাধারণ মানুষকে সেবা দেওয়ার জন্য নিজের আপন মা সে খুব অসুস্থ বার বার বাড়ী যাতায়াত করলে মা যেন আক্রান্ত না হয় অথবা পরিবারের কেউ করোনায় আক্রান্ত না হয় সে জন্য অন্যথায় জীবন-যাপন করে আজ খুলনার সাধারণ মানুষকে সেবা দিয়ে যাচ্ছে। খুলনার সাধারণ জনগণসহ সকল দলের নেতা কর্মীদের সে বুঝিয়ে দিলো ক্রান্তিকালীন সময়ে মানুষের পাশে কি করে দাড়াতে হয় মানুষের ভালোবাসা কি করে অর্জন করতে হয়?। ভালোবাসা অনেক মূল্যবান সম্পদ যেটা সহাসয়ি অর্জন করা সম্ভব না।দেশের ক্রান্তিকালীন সময়ে শেখ পরিবার যেমনিভাবে জনগনের পাশে থেকে তাদের সাপোর্ট দেয় আদর্শিকভাবে শেখ পরিবারের এই ভালো গুন গুলো তার ভিতরে স্বাভাবিকভাবে পরিলক্ষিত হয়।শেখ পরিবারের নিজস্ব অর্থায়নে গঠিত শেখ সোহেল অক্সিজেন ব্যাংক, শেখ আবু নাসের অক্সিজেন ব্যাংক ,শেখ সালাহউদ্দিন জুয়েল ফ্রি এ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস ও টেলিমেডিসিন সেবার সঠিক নেতৃত্বের মাধ্যমে সেচ্ছাসেবকদের করেছে কাজের প্রতি আন্তরিক।এই করোনাকালীন ক্রান্তিলগ্নে শেখ শাহাজালাল হোসেন সুজন তার নিজস্ব অর্থায়নে খুলনা ৩ আসনের গরিব, দুঃখী,অসহায় ও ছিন্নমুল মানুষ সহ বিভিন্ন পর্যায়ের হাজার হাজার লোকদের মাঝে খাদ্য বিতরণ,গরিব অসহায় শিক্ষার্থীদের মাঝে পাঠ্যপুস্তক বিতরন ও নগদ অর্থ প্রদান সহ বিভিন্ন ধরনের সহোযোগিতা মূলক কাজ করে যাচ্ছেন। এই করোনা যোদ্ধার কাছে আমাদের প্রতিনিধি জানতে চান এই কঠিন মূহুর্তের ভিতরে নিজের ঘরে ছোটো বাচ্চা ও অসুস্হ মাকে রেখে কি কারনে জীবনের ঝুকি নিয়ে একজন করোনা যোদ্ধা হয়ে কাজ করছেন? উত্তরে তিনি বলেন আমার বাবা ও ভাই বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বুকে লালন করে রাজনীতি করে এই পৃথিবী ছেড়ে চলে গেছেন আমার অভিভাবক বৃন্দ শেখ পরিবারের সদস্যরাও এই কঠিন সময়ে মানুষের পাশে থেকে বিভিন্ন কার্যক্রম করছে আপনারা একটা কথা শুনলে অবাক হবেন আমার একজন অভিভাবক কেন্দ্রীয় যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক শেখ সোহেল চাচা করোনায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন নিজের জীবনটা ঝুকির ভিতরে থাকার পরেও বিভিন্ন নেতৃবৃন্দদের ফোন করে খুলনার মানুষের কথা জানতে চাইতেন তারা কেমন আছে, অক্সিজেনের কোনো সমস্য হচ্ছে কিনা?জীবন সন্ধিক্ষণে এমন চিন্তা আসলে বঙ্গবন্ধুর রক্তের উত্তরসূরি কারোর কাছ থেকেই আশা করা যায় যেমনটি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে দাড়িয়ে দেশের মানুষের কথা বলেছিলেন এটাই হলো প্রমান যে “রক্ত কথা বলে”।তাদের তুলনায় আমি সামান্যতম সেবা করার চেষ্টা করেছি মাত্র।মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করার লক্ষ্যে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বুকে ধারন করে আমার অভিভাবক শেখ পরিবারকে অনুকরন করে খুলনার মানুষের ভালোবাসায় শিক্ত হয়ে বাকি সময়টা চলতে চাই।জন সাধারণের উদ্দ্যেশ্যে তিনি বলেন আপনারা সবাই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও শেখ আবু নাসের সহ এই শোকাবহ আগস্ট মাসে যারা শহীদ হয়েছেন সবার জন্য দোয়া করবেন।এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা সহ এই শেখ পরিবারের জন্য দোয়া করবেন তারা যেনো দীর্ঘজীবী হয়ে মানুষের পাশে থেকে কাজ করে যেতে পারেন ও সর্বোপরি আমার পরিবার সহ এই করোনাকালীন সময়ে যারা সম্মুখ যোদ্ধা হিসেবে কাজ করছে সবার জন্য দোয়া করবেন।

     এ জাতীয় আরো খবর..

আমাদের পত্রিকায় আপনাকে স্বাগতম

সংবাদ খুজছেন… নিচের বক্সে শিরোনাম লিখুন